ক্যাভিটিস থেকে সৃষ্ট দাঁতে যন্ত্রনা দূর করার প্রাকৃতিক উপায়।

দাঁতের ব্যথা বা যন্ত্রনা মানে ক্যাভিটিস এর কারণে সৃষ্ট ব্যথা বা যন্ত্রনা। দাঁতের ব্যথা বা যন্ত্রনা খুবই বেদনা দায়ক এবং কষ্টকর একটি পরিস্থিতি। সেটা একমাত্র যার দাঁতের যন্ত্রনা হয় সেই বোঝে। দাঁতে যন্ত্রনা শুরু হলে মনে হয় যেকোনো উপায়ে কিভাবে এটা কমানো যায়। অনেকে দাঁতের যন্ত্রনা সহ্য করতে না পেরে দাঁতটি তুলে ফেলার জন্য ডাক্তারের শরণাপন্ন হন। এছাড়া অনেকে ডাক্তারের প্রেসক্রিপশন অনুযায়ী ঔষুধ খান, দাঁতে জেল ব্যবহার করেন, বিভিন্ন ধরণের মাউথওয়াশ ব্যবহার করে থাকেন।

বাঙালি আর অলসতা যেন একসাথে মিশে থাকে। আমরা রুটিন অনুযায়ী কিছু করতে পারি না। সামান্য দাঁত ব্রাশ করতে গিয়েও আজ আর করবো না কাল সকালে উঠে করবো ইত্যাদি। নিয়মিত দাঁত না করলে দাঁতের মাঝে খাবার জমে থাকতে থাকতে দাঁতের ক্ষতি হতে শুরু করে। আস্তে আস্তে দাঁতে গর্ত হয়। একপর্যায়ে দাঁতটি নষ্ট হয়ে ভাঙা শুরু করে। তারপর ভাঙ্গা দাঁতে খাবার ঢুকে ব্যাকটেরিয়ার আক্রমনে শুরু হয় অসহ্য দাঁতে যন্ত্রনা।

ক্যাভিটিস কী?

রুটি, দুধ, কেক, চকলেট বা চিনি যুক্ত খাবার খাওয়ার পরে দাঁতে লেগে থাকে। কিছু কিছু ব্যাকটিরিয়া আমাদের মুখে থাকে এই ব্যাকটিরিয়া খাবারগুলোকে অ্যাসিডে পরিণত করে। ব্যাকটিরিয়া, অ্যাসিড, দাঁতে লেগে থাকা খাবার এবং মুখের লালা একত্রিত হয়ে তৈরি করে প্লেক। এই প্লেক দাঁতের এনামেল নষ্ট করে দাঁতে গর্ত তৈরি করে। যা ক্যাভিটিস নামে পরিচিত।

দাঁতে যন্ত্রনা দূর করার প্রাকৃতিক উপায়

দাঁতে যন্ত্রনা দূর করার ঔষুধ, জেল, মাউথওয়াশ ছাড়াও কিছু প্রাকৃতিক উপকরণ রয়েছে। আসুন সেগুলো সম্পর্কে জানা যাক –

উষ্ণ লবণ পানি:

এটা দাঁতের যন্ত্রনা দূর করতে খুবই কার্যকরী। একগ্লাস উষ্ণ গরম পানিতে ১/২ চা চামচ লবণ মিশিয়ে কুলকুচি করুন। দেখবেন দাঁতের শিরশির ভাব ও যন্ত্রনা কমে যাবে। লবণ পানি একটি প্রাকৃতিক জীবাণুনাশক এবং এটি দাঁতের মধ্যে আটকে থাকা খাবারের কণা দূর করতে সহায়তা করে। লবণ পানি দাঁতে ব্যথার চিকিৎসার পাশাপাশি যে কোনও মুখের ক্ষত নিরাময়ে সহায়তা করতে পারে।

নারকেল তেল ও লবঙ্গের গুঁড়ি:

নারকেল তেলে রয়েছে অ্যান্টি-মাইক্রোবিয়াল বৈশিষ্ট্য আর লবঙ্গতে ইউজেনল রয়েছে যা প্রাকৃতিক অ্যান্টিসেপটিক এটি ব্যথা উপশমে সাহায্য করে। লবঙ্গের গুঁড়া এবং নারকেল তেল ভাল করে মিশিয়ে নিয়ে টুথব্রাশের সাহায্যে এই পেস্টটি যে দাঁতে যন্ত্রনা সেই দাঁতে লাগিয়ে নিন। এতে দ্রুত যন্ত্রনা কমে যাবে।

পেয়ারা পাতা:

দাঁতের যন্ত্রনা নিরাময়ে পেয়ারা পাতা অনেক আগে থেকেই ব্যবহৃত হয়ে আসছে। দাঁতে যন্ত্রনা করলে কয়েকটি পেয়ারা পাতা নিয়ে চিবান, এর রস দাঁতের ব্যথার জন্য উপকারী। কারণ পেয়ারার পাতায় অ্যান্টি-ইনফ্ল্যামেটরি বৈশিষ্ট্য রয়েছে যা দাঁতের ক্ষত নিরাময়ে সহায়তা করে। এছাড়া ৪/৫ টি পেয়ারা পাতা পানিতে দিয়ে ফুটিয়ে সেই পানি ঠাণ্ডা করে সামান্য লবণ মিশিয়ে মাউথওয়াশ হিসেবে ব্যবহার করতে পারেন।

বরফ:

দাঁতের যন্ত্রনা নিরাময়ে বরফ টুকরা বেশ কার্যকরী। সুতি পাতলা কাপড়ে একটি ছোটো বরফের টুকর পেঁচিয়ে নিন। যে স্থানে দাঁতে ব্যথা সেখানে ২০ মিনিট ধরে চেপে ধরে রাখুন। এতে সেই স্থানের রক্তনালীগুলিকে সংকুচিত হবে। এবং যন্ত্রনা আস্তে আস্তে কমে যাবে।

রসুন:

হাজার হাজার বছর ধরে, রসুন তার ঔষুধি বৈশিষ্ট্যগুলির জন্য স্বীকৃত এবং ব্যবহৃত হয়ে আসছে। এটি কেবল ক্ষতিকারক ব্যাকটিরিয়া মেরে ফেলতে পারে যা ডেন্টাল ফলক তৈরি করে, তবে এটি ব্যথা উপশমকারী হিসাবেও কাজ করতে পারে। এক্ষেত্রে রসুনের পেস্টের সাথে লবঙ্গ গুড়ি মিশিয়ে আক্রান্ত স্থানে এটি লাগান। অথবা একটি রসুনের কোঁয়া একটি লবঙ্গ এক সাথে চিবাতে পারেন।

গোলমরিচ:

দাঁতে ক্যাভিটি বা ব্যথা থাকলে, গোলমরিচ দাঁতে ব্যথা ব্যথা দূর করতে সাহায্য করে।

সকালেঘুম থেকে উঠে আর রাত্রে ঘুমাতে যাওয়ার আগে নিয়মিত দুই বার দাঁত ব্রাশ করুন। দাঁতের যন্ত্রনা হলে উপরের উপকরণ গুলোর পাশাপাশি ডেন্টিস্টের পরামর্শ নিন। কেননা যাদের দাঁতের সমস্যা গুরুতর তাদের জন্য এই ট্রিটমেন্ট নয়। তাঁরা ডেন্টিস্টের সাথে কথা বলে দাঁতের চিকিৎসা করতে পারেন।

Share