কোকো পাউডার উচ্চ রক্তচাপ কমায়, মস্তিষ্কে রক্ত ​​প্রবাহ বৃদ্ধি করে ও হার্টের রোগের ঝুঁকি হ্রাস করে।

কোকো পাউডার কি?

কোকো বীজ থেকে তৈরি হয় কোকো পাউডার। কোকোয়া বীজ শুকিয়ে তাকে ফারমেনটেশন করে তারপর বীজগুলো রোস্ট করে গুঁড়া করতে হয় যা, কোকোয়া পাউডার নাম পরিচিত।

এই কোকো পাউডার চকলেটের অন্যতম উপাদান। কোকো গাছের বীজের তীব্র তেতো স্বাদ রয়েছে।

কোকো বা কোকোয়া দক্ষিণ আমেরিকার আমাজন উপত্যকার উদ্ভিদ। মধ্য আমেরিকার আরও কয়েকটি দেশে এর চাষ সম্প্রসারিত হয়েছে। তারপর আফ্রিকার আইভরি কোস্ট, ঘানা, নাইজেরিয়া ও ক্যামেরুনে এর চাষ শুরু হয়।

এরপর এশিয়ার মালয়েশিয়া, ইন্দোনেশিয়া ও নিউগিনিতে সূচনা হয় এর চাষ। দক্ষিণ ভারত ও উড়িষ্যা রাজ্যেও এর চাষ দেখা যায়।

কোকোয়ার বৈজ্ঞানিক নাম Theobroma cacao এবং ইংরেজিতে cocoa ফরাসিরা এই গাছের সন্ধান পায়। ১৬৫৭ সালে এক ফরাসি নাগরিক লন্ডনে ‘চকলেট হাউস’ প্রতিষ্ঠার মাধ্যমের চকলেট জনপ্রিয় করে তোলেন।

১৮৯০ সাল থেকে শুরু হয়ে ১৯৫০ সালের দিকে এর চাষের বেশি প্রসার ঘটে। বর্তমানে পৃথিবীর ৪৩ শতাংশ কোকোয়া উৎপাদন হয় আইভরিকোস্ট থেকে।

কোকো পাউডারে প্রচুর পরিমাণে থিওব্রোমাইন (theobromine) রয়েছে, যা প্রদাহ হ্রাস করতে সহায়তা করে, হার্টের রোগ, ক্যান্সার এবং ডায়াবেটিসের মতো রোগ থেকে রক্ষা করতে পারে।

কোকো পাউডারের পুষ্টিগুণ

নিচে কোকো পাউডারের পুষ্টিগুণ বা পুষ্টি উপাদান দেওয়া হলো –

  • ক্যালোরি: ৪৯
  • কার্বোহাইড্রেট: ১২ গ্রাম
  • ফাইবার: ৭ গ্রাম
  • প্রোটিন: ৪ গ্রাম
  • ফ্যাট: ৩ গ্রাম

কোকো পাউডারের স্বাস্থ্য উপকারিতা

নিচে কোকোয়া বা কোকো পাউডারের স্বাস্থ্য উপকারিতা দেওয়া হলো –

উচ্চ রক্তচাপ হ্রাস করতে পারে:

কোকো পাউডার বা ডার্ক চকোলেট রক্তচাপকে হ্রাস করতে সহায়তা করতে পারে। কোকো পাউডারে থাকা ফ্ল্যাভ্যানল রক্তে নাইট্রিক অক্সাইডের মাত্রা উন্নত করতে পারে, যা রক্তনালীর কার্যকারিতা বাড়িয়ে তুলতে এবং রক্তচাপকে হ্রাস করতে পারে।

হার্ট অ্যাটাক এবং স্ট্রোকের ঝুঁকি হ্রাস করে:

রক্তচাপ কমানোর পাশাপাশি, দেখা যাচ্ছে যে কোকো পাউডারে এমন বৈশিষ্ট্য রয়েছে যা হার্ট অ্যাটাক এবং স্ট্রোকের ঝুঁকি হ্রাস করতে পারে। ফ্ল্যাভানল সমৃদ্ধ কোকো পাউডার রক্তে নাইট্রিক অক্সাইডের মাত্রা উন্নত করে যা ধমনী এবং রক্তনালীগুলিকে শিথিল করে এবং প্রসারণ করে রক্ত ​​প্রবাহকে উন্নত করে।

এছাড়া কোকো পাউডার “খারাপ” LDL কোলেস্টেরল হ্রাস করতে পারে। ফলে হার্ট অ্যাটাক, হার্ট ফেইলিওর এবং স্ট্রোকের ঝুঁকি কমে যায়। ১৫৭,৮০৯ জন লোকের নয়টি সমীক্ষাযর পর্যালোচনা করে দেখা গেছে যে, বেশি ডার্ক চকোলেট খাওয়ার ফলে হার্টের রোগ, স্ট্রোক এবং মৃত্যুর ঝুঁকি উল্লেখযোগ্যভাবে কম ছিল।

মস্তিষ্ক এবং মস্তিষ্ক ফাংশনে রক্ত ​​প্রবাহকে উন্নত করে:

বেশ কয়েকটি গবেষণায় দেখা গেছে যে, কোকো পাউডারে থাকা পলিফেনল মস্তিষ্কের কার্যকারিতা এবং রক্ত ​​প্রবাহকে উন্নত করে নিউরোডিজেনারেটিভ রোগের ঝুঁকি হ্রাস করতে পারে। ফ্ল্যাভানলস নাইট্রিক অক্সাইডের উৎপাদনে উৎসাহ দেয়, যা রক্তনালীর পেশীগুলি শিথিল করে, মস্তিষ্কে রক্ত ​​প্রবাহ এবং রক্ত ​​সরবরাহকে উন্নত করে।

অধ্যয়নগুলি থেকে বোঝা যায় যে, কোকো পাউডারে থাকা ফ্ল্যাভ্যানোল মানসিক প্রতিবন্ধকতাহীন এবং লোকদের মধ্যে মানসিক কর্মক্ষমতা উন্নত করতে পারে।

পলিফেনল সমৃদ্ধ:

পলিফেনল এক ধরণের অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট যা আমরা প্রাকৃতিকভাবে ফল, শাক-সবজি, চা, চকোলেট জাতীয় খাবার থেকে পাই। পলিফেনল হজমের সমস্যা দূর করতে, ওজন ঠিক রাখতে, কার্ডিওভাসকুলার রোগের উন্নতি করতে করতে, কোলেস্টেরল এবং রক্তে শর্করার মাত্রা হ্রাস করতে সহায়তা করে। কোকো পাউডার পলিফেনলের অন্যতম উৎস।

মুড এবং হতাশা উন্নত করে:

কোকো বয়সের সাথে সম্পর্কিত মানসিক অবক্ষয়ের উপর প্রভাব ছাড়াও মেজাজ এবং হতাশার লক্ষণগুলি উন্নত করতে পারে। চকোলেট গ্রহণ এবং গর্ভবতী মহিলাদের স্ট্রেসের মাত্রা সম্পর্কে এক সমীক্ষায় দেখা গেছে যে, চকোলেট সেবনের ফলে বাচ্চাদের উন্নত মেজাজের সাথে সম্পর্কিত ছিল।

অন্য একটি সমীক্ষায় দেখা গেছে যে উচ্চ-পলিফেনল যুক্ত কোকো পাউডার খাওয়ায় প্রশান্তি ও তৃপ্তি উন্নত হয়।

টাইপ-2 ডায়াবেটিসের লক্ষণ কমায়:

কোকোতে ডায়াবেটিক বিরোধী কিছু প্রভাব রয়েছে। টেস্ট-টিউব সমীক্ষায় ইঙ্গিত পাওয়া যায় যে, কোকো পাউডারে থাকা ফ্ল্যাভ্যানল অন্ত্রের মধ্যে কার্বোহাইড্রেট হজম এবং শোষণকে ধীর করতে পারে, ইনসুলিন নিঃসরণকে উন্নত করতে পারে, প্রদাহ হ্রাস করতে পারে।

কিছু গবেষণায় দেখা গেছে যে কোকো থেকে প্রাপ্ত ফ্ল্যাওনোলগুলির উচ্চ মাত্রায় গ্রহণের ফলে টাইপ-2 ডায়াবেটিসের ঝুঁকি কমতে পারে। এছাড়া ফ্ল্যাভানল সমৃদ্ধ ডার্ক চকোলেট খাওয়ার ফলে ইনসুলিন সংবেদনশীলতা হ্রাস করতে পারে, রক্তে শর্করার নিয়ন্ত্রণ উন্নত করতে পারে এবং ডায়াবেটিস এবং ননডায়াবেটিক ব্যক্তিদের মধ্যে প্রদাহ হ্রাস করতে পারে।

ক্যান্সার-প্রতিরক্ষামূলক বৈশিষ্ট্য রয়েছে:

ক্যান্সার একটি ভয়ঙ্কর মারণ ব্যধি। ফল, শাকসবজির মতো কোকো পাউডার থেকে প্রাপ্ত ফ্ল্যাভানল এর ক্যান্সার-প্রতিরোধী গুণাবলী রয়েছে। কোকোর উপর টেস্ট-টিউব সমীক্ষায় দেখা গেছে যে, কোকোর অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট প্রভাব রয়েছে যা কোষগুলিকে ক্ষতির হাত থেকে সুরক্ষা দেয়, প্রদাহের বিরুদ্ধে লড়াই করে, ক্যান্সার কোষের বৃদ্ধিকে বাধা দেয় এবং ক্যান্সার কোষের বিস্তার প্রতিরোধে সহায়তা করে।

কোকো সমৃদ্ধ ডায়েট স্তন ক্যান্সার, অগ্ন্যাশয় ক্যান্সার, প্রোস্টেট ক্যান্সার, লিভার ক্যান্সার এবং কোলন ক্যান্সার হ্রাস করতে পারে।

ওজন কমায়:

কোকো ফাইটোনিট্রিয়েন্ট সমৃদ্ধ তবে ফ্যাট এবং চিনির পরিমাণ কম, তাই কোকো পাউডার থেকে যে ক্যালোরি পাই তা স্বাস্থ্যকর। গবেষণায় আরও দেখা গেছে যে, কোকো শক্তি সরবারহ করে এবং পরিপূর্ণতার অনুভূতি বৃদ্ধি করে।

হাঁপানিতে আক্রান্ত ব্যক্তিদের সহায়তা করতে পারে:

হাঁপানি একটি দীর্ঘস্থায়ী প্রদাহজনিত রোগ যা জীবন-হুমকিস্বরূপ হতে পারে। কোকো হাঁপানি রোগীদের জন্য উপকারী, কারণ এতে অ্যাথোমেটিক যৌগ যেমন থিওব্রোমাইন এবং থিওফিলিন রয়েছে। এই উপাদান দুটি হাঁপানিতে আক্রান্ত ব্যক্তিদের সহায়তা করতে পারে। তবে কিভাবে সহায়তা করে তা এখনও জানা যায় নি।

দাঁত এবং ত্বকের উপকার করে:

বেশ কয়েকটি গবেষণা ডেন্টাল গহ্বর এবং মাড়ির রোগের বিরুদ্ধে কোকো পাউডার প্রতিরক্ষামূলক প্রভাব ররেছে। কোকোতে অ্যান্টিব্যাকটেরিয়াল, অ্যান্টি-এনজাইমেটিক এবং ইমিউন-উত্তেজক বৈশিষ্ট্য রয়েছে যা মুখের স্বাস্থ্যের জন্য ভালো।

কোকোর আর একটি জনপ্রিয় দিক হলো এটি ত্বকের জন্য ভালো। কোকো পাউডারে থাকা পলিফেনলগুলি ত্বকের জন্য গুরুত্বপূর্ণ প্রভাব ফেলে। কোকো সূর্যের ক্ষতিকর রশ্মি থেকে ত্বকে সুরক্ষা করে, ত্বকের রক্ত ​​সঞ্চালনে এবং ত্বককে হাইড্রেট রাখতে সাহায্য করে।

সতর্কতা:

আপনি যদি জটিল কোনো রোগে আক্রান্ত হন বা অন্য কোনো কারণে রেগুলার কোনো মেডিকেল কোর্স-এর মধ্য দিয়ে যান তাহলে অবশ্যই খাওয়ার আগে আপনার চিকিৎসকের পরামর্শ নিবেন।

রেফারেন্স:

Share