কে কে করোনা ভাইরাসের টিকা নিতে পারবে আর কে নিতে পারবে না।

বেশিরভাগ মানুষই টিকা নেওয়ার যোগ্য। আপনার ডায়াবেটিস বা পেসারের সমস্যা আছে। তাতে কি? আপনিও টিকা নিতে পারবেন। আসলে টিকা নিতে কারা পারবেনা এটা পরিষ্কার করলে বিষয়টা আরো সহজ হয়ে যাবে। তার আগে সকলের মনের ভুল ধারণাটা আগে দূর করা দরকার।

অনেকেই এই ব্যাপারে প্রশ্ন করছেন বা জানতে চাইছেন যে, করোনা ভাইরাসের টিকা নিরাপদ কিনা?

টেনেসির ভ্যান্ডারবিল্ট বিশ্ববিদ্যালয়ের সংক্রামক রোগ বিশেষজ্ঞ ডাঃ উইলিয়াম শ্যাফনার বলেছেন, মোদারনা এবং ফাইজার উভয় ভ্যাকসিনই নিরাপদ।ক্যালিফোর্নিয়ায় স্ট্যানফোর্ড হেলথ কেয়ারের একটি সংক্রামক রোগ চিকিত্সক ডঃ অ্যান লিউ বলেছেন, টিকা দেওয়ার ফলে দীর্ঘমেয়াদী কোনও সম্ভাব্য প্রতিক্রিয়া নিয়ে চিন্তার কারণ নেই।

দীর্ঘমেয়াদী পার্শ্ব প্রতিক্রিয়া নিয়ে চিন্তিত লোকেরা ভ্যাকসিনগুলি কীভাবে কাজ করে তা কিছুটা ভুল বুঝতে পারে। এটি এমন কিছু নয় যা আপনার শরীরে খুব বেশি দিন থাকে এবং প্রতিরোধ ক্ষমতা যে উত্পন্ন হয় তা বেশ দ্রুত এবং বেশ কয়েক সপ্তাহ ধরে এটি বেশ দ্রুত স্থির হয়ে যায়,লিউ হেলথলাইনকে বলেছেন।

এটি এমন ওষুধের মতো নয় যা আপনার দেহে জমা হতে পারে। এটি এমন কিছু নয় যা আপনার মেকআপ সম্পর্কে কোনও কিছু পরিবর্তন করে যাতে এটি আপনার উপর কোনো প্রভাব ফেলতে পারে।

বৈজ্ঞানিকভাবে, এই ভ্যাকসিনগুলি এখন দুটি বাহ্যিক, শক্ত কমিটি, সংস্থা বা সরকারের সাথে সম্পর্কিত নয় এমন ব্যক্তিরা কঠোরভাবে পরীক্ষা করে দেখেছেন,” শ্যাফনার হেলথলাইনকে বলেছেন।বেশিরভাগ মানুষের জন্য, কওভিড -১৯ টি ভ্যাকসিন নিরাপদ।

করোনা ভাইরাসের টিকা কে নিতে পারবেনা?

বয়স আঠারোর কম:

যাদের বয়স আঠারো(১৮)-বছর পূর্ণ হয়নি তারা করোনা ভাইরাসের টিকা নিতে পারবেনা। যাদের বয়স আঠারো বছরের কম তাদের COVID-19-Vaccine দিলে ভালো-মন্দ কি প্রতিক্রিয়া হতে পারে এটা নিয়ে এখনও গবেষণা চলছে। তাই আঠারো বছরের কম অর্থাৎ শিশু ও কৈশোরকাল যারা অতিক্রম করছেন তারা এর আওতাভুক্ত নয়।

এলার্জিযুক্ত লোক:

অনেকেরই এলার্জিজনিত সমস্যা থাকে। নির্দিষ্ট কিছু জিনিস বা উপাদানের প্রতি শরীর মারাত্মকভাবে রিয়াক্ট করে। যে লোকেদের ভ্যাকসিনের যে কোনও উপাদানগুলির জন্য মারাত্মক অ্যালার্জি রয়েছে তারা ডাক্তারের পরামর্শ ব্যাতিত ভ্যাকসিন নিবেন না।

গর্ভবতী বা বুকের দুধ খাওয়ানো মা:

আসলে এটা আলাদাভাবে আলোচনা করা উচিত ছিল। কারণ বাইরের কিছু দেশে গর্ভবতী ও বুকের দুধ খাওয়ানো মায়েদের COVID-19-Vaccine দেওয়া হয়েছে এবং তারা অন্যদের মতো সুস্থ্য আছেন। আমাদের দেশে গর্ভবতী ও বুকের দুধ খাওয়ানো মায়েদের দেওয়া হচ্ছে না।

COVID-19 -র জন্য ইতিবাচক পরীক্ষার লোকেরা:

আপনার করোনা ভাইরাস পজিটিভ। জ্বর, সর্দি-কাশি বা গলাব্যাথায় ভুগছেন। এই অবস্থায় আপনি করোনা ভাইরাসের টিকা নিতে পারবেন না। আপনি সুস্থ্য হবার পরে আপনার চিকিৎসকের পরামর্শ অনুযায়ী আপনি টিকা নিতে পারবেন। কারণ একবার আক্রান্ত হলে পরবর্তীতে আর হবে না বিষয়টা এমন নয়।

অন্তর্নিহিত চিকিৎসা শর্তযুক্ত মানুষ:

আপনি কোনো চিকিৎসকের তত্বাবধানে থেকে চিকিৎসা নিচ্ছেন। চিকিৎসকের অনুমতি ছাড়া টিকা নিতে পারবেন না।তবে আমরা জানি যে, ইমিউনোকম্প্রাইজড রোগী এবং এইচআইভি সংক্রামিত রোগীদের মারাত্মক সিওভিডির ঝুঁকি বাড়ার সম্ভাবনা রয়েছে, তাই তারা এখনও ভ্যাকসিন গ্রহণ করতে পারে অনেকে মতামত দিয়েছেন।

অন্য কোনো টিকা নিয়েছেন। চিকিৎসকের পরামর্শ অনুযায়ী নির্দিষ্ট দিন অতিক্রান্তের পর।

কোনো ওষুধ খাচ্ছেন যেটা রক্ত পাতলা বা রক্ত জমাট বাঁধতে সাহায্য করে। তাহলে আপনি আপনার চিকিৎসকের অনুমতি ছাড়া টিকা নিতে পারবেন না।

মনে রাখবেন, টিকা নেওয়ার পরও আপনার করোনা হতে পারে। তবে তাঁর প্রভাব কম থাকবে। টিকা নেওয়ার পরও সামান্য ঝুঁকির কথা জানাচ্ছে ভারত বায়োটেকের পক্ষ থেকে। অ্যালার্জির সম্ভাবনার কথা আগেই জানিয়ে দিয়েছিল। হতে পারে শ্বাস নেওয়ার কষ্ট। গলা ও মুখ ফুলে যেতে পারে, র‌্যাশ ও ঝিমুনি আসতে পারে। তবে সেই পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া হাই ডোজের ওষুধ খেলে যা যা হয়, ঠিক সেরকমই। ভয়ের কিছু নেই।

সূত্রঃ

Who Can and Can’t Safely Get the COVID-19 Vaccine.
Share