কিসমিস ভেজানো পানি লিভার পরিষ্কার করে, হার্ট ভালো রাখে ও রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধি করে।

পোলাও কিংবা পায়েস একটু কিসমিস না হলে মনটা কেমন হাহাকার করে। কি যেনো বাদ পড়লো। বড্ড খালি খালি মনে হয়। হবেই বা না কেনো, কিসমিস পড়তেই স্বাদ যেনো কয়েকগুন বেড়ে যায়। চীনাবাদাম বা আলমন্ড বা কাজু বাদাম চিবিয়ে খাচ্ছেন? স্বাদ পাচ্ছেন না? কিসমিসের সঙ্গে চিবিয়ে খান। স্বাদ কতটা বেড়ে গেলো নিজেই টের পাবেন।

স্বাদের কথা আর না হয় না বললাম। বাদ দিন স্বাদের কথা। কিসমিসের গুনের কথা অর্থাৎ স্বাস্থ্যসুবিধা এখন অনেকেরই জানা। কিন্তু অনেকেই জানেন না যে, কিসমিস ভেজানো জল বা পানিও শরীরের পক্ষে বিশেষ উপকারী। তাই বন্ধুরা, আজকে Raisin water বা কিসমিস ভেজানো জল বা পানির স্বাস্থ্যসুবিধা সম্পর্কে আলোচনা করবো।

ইংরেজিতে Raisin water বা Soaked raisin, বাংলায় কিসমিস জল বা কিসমিস ভেজানো জল। কিসমিসের বৈজ্ঞানিক নাম Vitis Vinifera .

কিসমিসের জল আপনাকে অনেক স্বাস্থ্য সমস্যা উপসাগরে নিক্ষেপ অর্থাৎ দূরে রাখতে সাহায্য করবে। কিসমিস জল বা পানি পান করা একটি পুরানো প্রতিকার যা স্বাস্থ্য এবং যকৃত-সম্পর্কিত সমস্যার চিকিৎসার জন্য ব্যবহৃত হয়।

রাতে ২ কাপ জলে একটু কিসমিস ভিজিয়ে রেখে দিন। কিসমিস যত গাঢ় রংয়ের হবে, তত উপকারী। পরের দিন সকালে ওই কিসমিস ছেঁকে নিন। এবার কিসমিস ভেজানো জলটা হালকা গরম করুন। খালি পেটে এই জল খেয়ে নিন। এই জল খাওয়ার আধঘণ্টার মধ্যে কিছু খাবেন না। সপ্তাহে তিন থেকে চার দিন এই জল খান।

কিসমিস পানি পান করার উপকারিতা:

রংটা আকর্ষণীয় নয়। কুঁচকানো, জীর্ণশীর্ণ। তাতে কি? এর পুষ্টিগুণের কথা জানলে আপনি অবশ্যই পয়েন্ট আউট করবেন আপনার খাবারের মেন্যুতে রাখার জন্য।

লিভারকে ডিটক্সাইফাই করে:

কিসমিস পানি পান করা আপনাকে আপনার শরীর থেকে সমস্ত ক্ষতিকারক টক্সিন বের করে দিতে সহায়তা করবে। এই পানীয় লিভারের জৈব রাসায়নিক প্রক্রিয়া উন্নত করে এবং আপনাকে রক্ত পরিষ্কার করতে সহায়তা করে। এটি সহজেই আপনার লিভারকে ডিটক্সাইফাই করে।

রক্তাল্পতা দূর করে:

কিসমিসে বা কিসমিস ভেজানো জলে রয়েছে প্রচুর পরিমানে আইরন। এক থেকে -দেড় কাপ কিসমিসে ১.৫ মিলিগ্রাম পর্যন্ত আইরন থাকে। এটি রক্তাল্পতা কমাতে দারুণভাবে সাহায্য করে। যারা রক্ত স্বল্পতায় ভোগেন বিশেষ করে গর্ভবতী মায়ের গর্ভকালীন সময়ে কিসমিস ভেজানো জল খুবই উপাদেয় একটি পানীয়। এটি লোহিত রক্তকণিকা তৈরি করতে ও কোষে অক্সিজেন পৌঁছে দিতে সাহায্য করে।

দেহে দ্রুত শক্তি যোগায়:

আমাদের দেহে দ্রুত শক্তি সরবরাহ করতে কিসমিস ভেজানো জলের কোনো তুলনা হয় না। কিসমিসে রয়েছে প্রাকৃতিক চিনি, গ্লুকোজ এবং ফ্রুক্টোজ। যারা দুর্বলতায় ভোগেন বা কঠোর পরিশ্রম করেন তাদের জন্য কিসমিস ভেজানো জল দ্রুত দেহে শক্তি সরবরাহ করবে এবং কয়েকদিন খেলেই দুর্বলতা কাটিয়ে উঠবেন। এক কাপ কিসমিসে প্রায় ৪৫০ ক্যালোরি এবং ৮০ গ্রামের উপরে চিনি রয়েছে।

পেটে অ্যাসিড নিয়ন্ত্রণ করে:

আপনি যদি অ্যাসিডিটির সমস্যার মুখোমুখি হন তবে কিসমিস পানি পান করা আপনার জন্য একটি দুর্দান্ত প্রতিকার। এই জল আপনার পেটে অ্যাসিড নিয়ন্ত্রণ করে।

রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ায়:

কিসমিস জলে অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট রয়েছে যা আপনার প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়াতে সহায়তা করে। করোনাভাইরাস বিস্তারের কারণে, আমাদের প্রতিরোধ ক্ষমতা উন্নত করা এত গুরুত্বপূর্ণ। ভাইরাসটিকে উপশম করতে কিসমিস জল আপনার ডায়েটে রাখুন।

হার্টের স্বাস্থ্য বজায় রাখে:

কিসমিসের জল আপনার রক্তের পরিশোধক হিসাবে কাজ করে এবং আপনার হৃদয়ের স্বাস্থ্য বজায় রাখতে সহায়তা করে। এটি আপনার শরীর থেকে খারাপ কোলেস্টেরল দূর করে এবং এটি আপনার হৃদয়ের স্বাস্থ্যের উন্নতিতে সহায়তা করে।

অন্ত্র আন্দোলন উন্নত করে:

কিশমিশে ফাইবার থাকে যা আপনার হজম সিস্টেমের জন্য দুর্দান্ত। কিসমিস পানি পান হজম উন্নতিতে সহায়তা করে। এটি কোষ্ঠকাঠিন্য এবং বদহজমের মতো হজম সমস্যাগুলি উপসাগরীয় স্থানে রাখে। এই জলটি নিয়মিত পান করা অন্ত্রের গতি উন্নতি করতে সহায়তা করে।

ওজন কমাতে সহায়তা করে:

সকালে কিসমিসের জল পান করা আপনাকে ওজন কমাতে সহায়তা করে। কিশমিশে ফ্রুক্টোজ এবং গ্লুকোজ সমৃদ্ধ যা আপনাকে শক্তিতে পরিপূর্ণ রাখে। এগুলির মধ্যে এমন ফাইবারও রয়েছে যা আপনাকে ঘন ঘন ক্ষুধা থেকে মুক্তি দেবে।

রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণ করে:

পটাসিয়াম ও ফসফরাসে পূর্ণ কিসমিস আপনার দেহের রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণে ভালো কাজ করে।

সতর্কতাঃ

যা কিছু খাবেন পরিমাণমতো খাবেন। আপনার শরীরের অবস্থা বুঝে খাবেন। অতিরিক্ত কোনো কিছুই ভালো নয়। আপনি যদি কোনো জটিল রোগে আক্রান্ত হন বা নিয়মিত কোনো ডাক্তারের তত্বাবধানে থেকে কোনো ওষুধ গ্রহণ করলে খাওয়ার আগে অবশ্যই আপনার ডাক্তারের পরামর্শ অনুযায়ী খাবেন।

সূত্রঃ

boldsky.com, ndtv

Share