কলা দ্রুত পেকে নষ্ট হচ্ছে? দীর্ঘদিন পাকা কলা সতেজ রাখার উপায়গুলো জেনে নিন।

বাড়িতে কলা খেতে খেতে বেশি পেকে কিছু কলা নষ্ট হয়ে যাচ্ছে। এই সমস্যাটা এতটাই কমন যে, মিতব্যয়ী লোক হলে তড়িঘড়ি করে পাকা কলা দিয়ে কিছু একটা বানিয়ে নেন আর তা না হলে গিন্নি ফেলে দিলে আর্থিক ক্ষতির কথা ভেবে মুডটাই নষ্ট হয়ে যায়। কলা আমাদের দৈনিক ডায়েটে থাকেই। আমরা অনেকে একটু কাঁচা দেখে কলা কিনি যাতে বাড়িতে দুই-চারদিন রেখে খাওয়া যায়।

সকালের ব্রেকফাস্ট কিংবা দিনের অন্য কোনো সময় কলা আমাদের প্রায়শ খাওয়া হয়। তবে ঘরে লোক সংখ্যা কম থাকলে কিংবা এক সঙ্গে বেশি কিনে আনলে বেশিরভাগই পচে যায়।

কলা সারাবছর হাতের কাছে যেমন পাওয়া যাই, সেইসঙ্গে পুষ্টিকর ও সুস্বাদুও বটে। কিন্তু বাজার থেকে কলা কেনার পর দেখা যায় অল্প সময়ের মধ্যেই তা পেকে নষ্ট হয়ে যায়। তবে সঠিকভাবে রক্ষণাবেক্ষণ করলে এই কলা বেশ কয়েকদিন রেখে খেতে পারবেন।

কিন্তু এমন কোনও উপায় রয়েছে কি, যাতে পাকা কলাও রীতিমতো সতেজ থাকতে পারে বেশ কিছুদিন? কলার মতো নাজুক ফলকে সতেজ রাখতে কিছু উপায় তো রয়েছে। এগুলো জানুন তাহলে উপকার পাবেন।

জেনে নিন কীভাবে কলা সংরক্ষণ করবেন:

কলা ঝুলিয়ে রাখুন:

কলা কিনলে কলা রাখার জন্য কোনো পাত্র অর্থাৎ বাটি বা গামলা কিনবেন না। কলা কিনলে কলা ঝুলিয়ে রাখার জন্য হ্যাঙ্গার কিনুন। এটা হয়তো আপনি জানেনই না। ঝুলিয়ে রাখলে কলা ধীরে ধীরে পাকে। এর পেছনে একটা বৈজ্ঞানিক ব্যাখ্যা আছে। গাছ থেকে কলা পেড়ে নিয়ে আসার পর আমরা হয়তো ঘরের কোনো এক কোনায় রেখে দেই। এতে কলা পেকে যাওয়ার প্রক্রিয়া দ্রুত হতে থাকে।কলার কাণ্ডে থাকা ইথিলিন গ্যাস নির্গত হওয়ার কারণে এমনটা হয়। তবে হুকের সঙ্গে ঝুলিয়ে রাখলে ইলিথিন গ্যাস ধীরে নির্গত হয়, সে কারণে কলা পাকেও ধীরে।

সবুজ কলা কিনুন:

কলা যাতে দ্রুত নষ্ট না হয়, তা নিশ্চিত করার সবচেয়ে সহজ উপায় হলো বাজার থেকে একটু সবুজ কলা কেনা। সবুজ বলতে একেবারে কাঁচা কলা কিনে নিয়ে আসবেন না। বেশি সবুজ কলা পাকতে সময় নেয় বেশি। এতে করে আপনি সময় মতো কলা খেতে পারবেন না। ফলে কলা খেয়ে আপনার রক্তচাপ কমবে কি টেনশনে আপনার প্রেসার হাই হয়ে যেতে পারে। তাই কিছুটা হলুদাভ সবুজ কলাই বেছে নেয়া ভালো।

কলার কাণ্ড ঢেকে রাখুন:

কলার কাণ্ড থেকে ইথিলিন গ্যাস নির্গত হয়ে দ্রুত কলা পেকে যায়। তাই প্লাস্টিক বা অ্যালুমিনিয়াম ফয়েল দিয়ে কলার কাণ্ড ঢেকে রাখুন।

বেশি পেকে গেলে ফ্রিজে রাখুন:

বন্ধুরা, জানার আছে অনেক কিছু। কলা বেশি পেকে গেলে ফ্রিজে রাখুন। অনেকে মনে করেন, কলা ফ্রিজে রাখলে তাড়াতাড়ি নষ্ট হয়ে যায়। তবে কলা পেকে গেলে তা আরো কয়েকদিন ভালো রাখার জন্য ফ্রিজে আপনাকে রাখতেই হবে।

শীতল তাপমাত্রা রাসায়নিক পাকা প্রক্রিয়াটি ধীর করে দেয়। কলা একবার আপনার পছন্দ মতো হয়ে গেলে সেগুলি ফ্রিজে রেখে দিন। খোসা বাদামি বা কালো হয়ে গেলে কোনো সমস্যা নেই। এই রঙ পরিবর্তনটি খোসার রঙ্গক থেকে আসে। এটি ফলের অভ্যন্তরে সজ্জার উপর কোনো প্রভাব ফেলবে না এবং স্বাদ ও পুষ্টি ঠিক থাকে।

কলা ফ্রিজে রাখবেন যেভাবে:

একগুচ্ছ কলা এক সঙ্গে ফ্রিজে রাখলে কলার খোসা দ্রুত নষ্ট হয়ে যাবে। এক্ষেত্রে আলাদা আলাদা কলা রাখতে পারেন। খোসা ছাড়িয়ে অথবা টুকরো টুকরো করে এয়ারটাইট বক্সে ভরে ফ্রিজে রাখলেও বেশ কিছু দিন ভালো থাকবে কলা।

কলা হয়তো খোসা ছাড়িয়ে ফেলেছেন বা ছোট ছোট টুকরো করে কাটা হয়ে গেছে। লেবুর রসে কিছুক্ষন চুবিয়ে রাখুন বা লেবুর রস মাখিয়ে রাখুন। লেবুর রস অর্থাৎ সাইট্রিক অ্যাসিড অক্সিডেশন প্রোসেস ধীর করে দেয়। এতে কয়েকদিন কলা সতেজ থাকবে। কলা এবং অন্যান্য ফলকেও সতেজ রাখার আর একটি উপকরণ হল সোডা ওয়াটার বা ক্লাব সোডা। এতে চুবিয়ে রাখলে কলার স্বাদ নষ্ট হয় না। এবং কলা কয়েকদিন পর্যন্ত তাজা থাকে।

কলাকে ভিনেগার দিয়ে স্নান করান। শুনতে কেমন লাগছে। ভিনিগারে চুবিয়ে রাখলেও কলা তাজা তাকে। তবে এ ব্যাপারে নিশ্চিত থাকতে হবে যে, ভিনেগারটি যেন যথেষ্ট লঘু হয়। খুব কড়া ভিনিগারে কলার বারোটা বেজে যাবে।

এয়ার টাইট কন্টেনারে রাখলে কলার যৌবন বাড়ে। বাতাসের সংস্পর্শ থেকে দূরে রাখাটাই এখানে উদ্দেশ্য। ফয়েল পেপারে মুড়ে রাখলেও কলা ভালো থাকে।

সূত্রঃ

today.com

Share